যশোরে নারীকে জুতাপেটা করলেন মেম্বার, ভিডিও ভাইরাল

শনিবার, ১৯ মার্চ ২০২২ | ৩:১৫ অপরাহ্ণ

যশোরে নারীকে জুতাপেটা করলেন মেম্বার, ভিডিও ভাইরাল
apps

যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের আব্দুলপুরে ইতি খাতুন (২০)।এক নারীকে জুতাপেটাসহ নির্যাতনের দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। চুড়ামনকাটির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের (আব্দুলপুর,পোলতাডাঙ্গা ও সাজিয়ালী) মেম্বার আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে ওই নারীকে নির্যাতন করা হয় ৷ ইতি যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

শুক্রবার রাতে ভুক্তভোগী নারীর পিতা আব্দুলপুর গ্রামের সাহেব আলী বাদী হয়ে মেম্বার আনিসুর রহমানসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নম্বর ৬২। বাকি ৩ আসামি হলেন আব্দুলপুরের মহব্বত আলীর ছেলে আইয়ুব আলী (৪০), নাছের আলীর ছেলে ভুট্টো (২৭), মৃত আব্দার আলীর ছেলে আব্দুল আলিম ওরফে খোকন (৩৮)।মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, গত ১৫ মার্চ

ইতি খাতুন তার পূর্ব পরিচিত বাগডাঙ্গা গ্রামের সরদারপাড়ার সাঈদ হাসানের (২২) সাথে এনায়েতপুর গ্রামে ওয়াজ মাহফিল শুনতে যায়। মাহফিল শেষে তিনি সাঈদের সাথে বাইসাইকেলযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে ফিরছিলেন।রাত ৭ টার দিকে আব্দুলপুরের রশিদের মুদি দোকানের সামনে পৌঁছালে আসামিরা ইতিকে খারাপ কথা বলে। এর প্রতিবাদ করলে আসামিরা ক্ষুব্ধ হয়ে নির্যাতন ও শ্লীলতাহানী ঘটায়।

এসময় ইতির ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, সোনার চেইন ও নগদ ১ হাজার ৫শ’ টাকা ছিনিয়ে নেয়। হাসপাতালের মহিলা সার্জারী ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ইতি খাতুন সাংবাদিকদের জানান, সাঈদ হাসানের সাথে খারাপ সম্পর্কের অপবাদ দিয়ে মেম্বর আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে জনসম্মুখে তাকে জুতা ও লাঠিপেটা করা হয়। তিনি ঘটনার সাথে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন।

ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যায়, মেম্বার আনিস প্রথমে ইতিকে পায়ের জুতা দিয়ে মারছেন। এরপর তাকে লাঠিপেটা করা হচ্ছে। এ সময় ইতি চিৎকার দিয়ে কান্নাকাটি করছেন। প্রথমে ঘটনাটি গোপন থাকলেও ভিডিও ভাইরালের পর তোলপাড় শুরু হয়।
এই বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য মেম্বার আনিসুর রহমানের ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তার নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এলাকার কয়েকজন ,সাঈদ হাসান ও ইতিকে ধরার পর মেম্বারের কাছে নেন। পরে হাবীবুর রহমান নামে একজন মেম্বর পক্ষীয়দের ম্যানেজ করে সাঈদকে মুক্ত করে নিয়ে যান। পরে ইতিকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

যোগাযোগ করা হলে চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন জানান, এক নারীকে জুতাপেটার ভিডিও ভাইরালের ঘটনা শুনেছি। তবে নির্যাতনের ঘটনাটি সত্য হলে বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। একজন জনপ্রতিনিধির কাছ থেকে এই ধরণের আচরণ কখনো কাম্য নয়। ওই নারী খারাপ হলে মেম্বার তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করতে পারতেন। ঘটনার তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান চেয়ারম্যান।

সাজিয়ালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই ওয়াসিম আকরাম জানান, মেম্বার আনিসুর রহমানসহ অন্য আসামিরা গা ঢাকা দিয়েছে। তাদের আটকে অভিযান অব্যাহত।

Development by: webnewsdesign.com