কাজিপুরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে জলাবদ্ধতা মুক্ত হলো পাঁচশ একর জমির পাকা ধান

সোমবার, ১৬ মে ২০২২ | ৫:৫৪ অপরাহ্ণ

কাজিপুরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে জলাবদ্ধতা মুক্ত হলো পাঁচশ একর জমির পাকা ধান
apps

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার পাঁচ গ্রামের প্রায় পাঁচশ একর জমির পাকা ধান অবশেষে জলাবদ্ধতা মুক্ত হয়েছে ।উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের খালের পানি প্রবাহের একমাত্র পথ মিরারপাড়া খালের মুখে মাটি ভরাট করে ওই গ্রামের ইলাহী ও জিন্নাহ । এর ফলে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় ।

বৃষ্টি বন্ধ হলেও পানি বের হতে না পারার ফলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। গতকাল(রোববার)দুপুরে কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী ও কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হাসান সিদ্দিকী সরেজমিন ওই গ্রামে গিয়ে পানি বের করে দিতে ওই দুই ব্যক্তির সাথে কথা বলেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন কাজিপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল হান্নান তালুকদার ও গান্ধাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে কাজিপুরে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ফলন হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় কৃষকের মুখেও দেখা দিয়েছে হাসি। কিন্তু গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির পানি বানিয়াজাল খাল দিয়ে বের হতে না পারায় ক্ষেতের সব পাকা ধান পানিতে তলিয়ে যায়।এই জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে গত বছর থেকে বিএডিসি পানাসি প্রকল্পের মাধ্যমে বানিয়াজান খাল খনন শুরু করেছে।এর ফলে গত মৌসুম থেকে কৃষকের পূর্বের এক ফসলী জমিতে তিনটি ফসল হচ্ছে। কিন্তু এবার ওই খালের মুখ বন্ধ করার ফলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও এবং কাজিপুর পৌর মেয়র ঘটনাস্থলে গিয়ে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ ঠিক রাখতে বাধ কেটে দেবার নির্দেশ দেন। রোববার বিকেলে ওই বাধা কাটা শুরু হয় এবং রাতে পানি প্রবাহ শুরু হয়।

মিরারপাড়া গ্রামের কৃষক চান্দু শেখ জানান, ওই লোকগ্যার কত কইলাম। তারা আমাগোরে কথা গুনলো না। পাকা ধান পানির নিচে গেছেগা। আইজক্যা বান্ধা কাইটা দিচ্ছে। এহন ধান কাইটতে পারমু।

কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী বলেন, ইউএনও সাব আমাকে খাল খননের সময় এ বিষয়ে বলেছিলো।তখন আমি জিন্নাহ এবং ইলাহীর সাথে কথা বলেছিলাম। তারা বলেছিলো এক পাশ দিয়ে পানি প্রবাহ ঠিক রাখতে খালের মুখ উন্মুক্ত রাখবে। কিন্তু তারা সে কথা রাখেনি।

কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হাসান সিদ্দিকী জানান,কৃষকের সুবিধার জন্যে খাল খনন করা হয়েছে। সেটা বন্ধ করার সুযোগ নেই।পানির প্রবাহ ঠিক রাখতে বানিয়াজান খালের মুখ আজ ভেকু মেশিন দিয়ে বাধ কেটে উন্মুক্ত করা হয়েছে। আশা করি দুদিনের মধ্যে পানি নেমে যাবে। উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী জানান, জলাবদ্ধতা নিরসনে যে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে প্রস্তত।কৃষকের ক্ষতি করে এমন কোন কর্মকান্ড কেউ করলে তা মেনে

Development by: webnewsdesign.com